মৃতমানুষের আত্মাকে আহ্বান

এই পৃথিবীতে মানুষের কৌতূহলের কোন কমতি নেই। ঠিক তেমনি মানুষের কৌতূহলের একটি বিষয় হল মৃতমানুষের আত্মাকে আহ্বানের প্রক্রিয়া।

আগেই বলে নিচ্ছি, কথাগুলো বিশ্বাস করবেন না-কী করবেন না সেটা আপনাদের একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার; তবে কথাগুলো নেহাত ভুয়া কথা নয়, এর সাথে বাস্তবেরও যথেষ্ট সম্পর্ক রয়েছে।

সত্যিকথা বলতে কি, আসলে প্ল্যানচ্যাট বলতে কোনো শব্দ নেই। এটা ইন্ডিয়া থেকে কোনো ভাবে আমাদের দেশে আমদানী হয়েছে যেটা আমিও আগে খুব শুনতাম। তবে প্ল্যনচ্যাটের বদলে রিয়েল ডেমনিক বা স্যাটানিজমে কী শব্দ ব্যবহার করা হয়, চলুন সেটা জেনে নেয়া যাক!

 

The Satanic Bible by Lavey, Anton Szandor
The Satanic Bible by Lavey, Anton Szandor

Channeling (চ্যানেলিং) – এটা খুবই ক্লোজলি প্ল্যানচ্যাটের সাথে ইন্টারচেঞ্জেবল। যার মানে আত্মার সাথে যোগাযোগ স্থাপন করা (Clair-audience – আত্মার কথা শুনতে পারা, Clair-gustance – আত্মার স্বাদ নিতে পারা, Clair-sentience – আত্মাকে ফিল করতে পারা, Clairvoyance – আত্নাকে দেখতে পারা); এগুলো প্রত্যেকটাই এক একটা শক্তি (সুপারন্যাচারাল পাওয়ার) বলতে পারেন। কীভাবে এসব ক্ষমতাকে অনুশীলন করা যায় বা ক্ষমতা গড়ে তোলা যায় সে নিয়ে অন্য পোস্টে বলবো।

 

এবার আপনি যদি আসলেই আত্মা ডাকতে চান বা কথা বলতে বা আত্নার সান্নিধ্য লাভ করতে চান তাহলে সায়েন্টিফিক উপায়ে বা সায়েন্সের সাহায্য নিয়ে আপনি যেটা ট্রাই করতে পারেন, সেটা হলো EVP। এটা হলো হোয়াইট নয়েস ধরার জন্য অর্থাৎ আত্মা ব্যকগ্রাউন্ডে যেকোনো নয়েজ করলে এটা সেই নয়েজ ডিটেক্ট করবে, এমনকি সেটাকে স্পিচেও পরিণত করতে পারে।

আবার, EMF বা ইলেক্ট্রো-ম্যগনেটিক ফিল্ড ডিটেক্টর, যেটা আত্নার অবস্থান নির্ণয়ে সাহায্য করবে। এছাড়াও মোশন ধরার জন্য আছে হাইটেক মোশন ডিটেক্টর। ইনভায়রনমেন্টাল চেইনজ ধরার জন্য আরো অনেক যন্ত্রপাতির মধ্যে আছে রেড সেলোফান, থার্মাল ইমেজিং স্কোপস, স্মল উইন্ডকাইমস, ইনফ্রারেড থার্মাল ডিটেক্টর।

 

Ghost Hunting Equipments
Ghost Hunting Equipments

এবার চলুন বহু পেছনে চলে যাই আত্মা ডাকাডাকির আরেকটি প্রচলিত পদ্ধতিম ওউইজা বা উইজা বা উইজি বোর্ড সম্পর্কে জানার জন্য। এই টকিং বোর্ডের আবির্ভাব ঘটেছিলো রোমান / গ্রীক শাসন আমলে, তবে এতটুকু শিওর যে এটা যীশুর জন্মেরও অনেক আগে।

 

ইভেনচুয়ালী, যীশু আসার পর এই বোর্ড ক্রিশ্চিয়ানিটির জন্য কাল হয়ে দাঁড়ায়। যেখানে মানুষ জনকে পুনরায় জীবিত করার ক্ষমতা যীশুর ছিলো সেখানে এই টকিং বোর্ডের ক্ষমতা ব্যবহার করে অনেকেই যীশুর উপর নেতাগিরি করতে চেয়েছিলো। যাই হোক এই কনফ্লিক্ট থেকে আস্তে আস্তে যখন ব্ল্যাক এবং আধুনিক ডেমনিক সমাজে এর প্রচলন বেড়ে যায়, তখন এটিকে অনেক দেশেই সাময়িকভাবে ব্যান করা হয়। এখনও এটাকে রিলিজিয়াস কাল্ট হিসেবেই ধরা হয়।

এর কার্যকরীতা ডিপেন্ড করে বোর্ডের নিয়ম অনুযায়ী। বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন নিয়মে এই বোর্ডের ব্যবহার প্রচলিত আছে। তবে বেসিকলি বলতে গেলে দুইটা সার্কেল থাকে এই বোর্ডে, প্রথম সার্কেলে ‘A’ থেকে ‘Z’ পর্যন্ত লেটার থাকে এবং দ্বিতীয় সার্কেলে ১ থেকে নয় পর্যন্ত সংখ্যা থাকে। প্রথম সার্কেলের সব লেটার আত্নার ‘হ্যাঁ’ রিপ্লায়ের সাথে সম্পৃক্ত যেখানে দ্বিতীয় সার্কেলের সব নাম্বার ‘না’ রিপ্লায়ের সাথে সম্পৃক্ত। কথাবার্তা শেষে যদি আত্নাকে আপনার সামনে ভিসিবল করতে পারেন সেটা হবে Materialisation এবং আত্মা চলে গেলে সেটা হবে Dematerialize।

এছাড়াও আত্মাকে আরেকজনের উপর ভর করেও যোগাযোগ স্থাপন করা যায়। তবে সেটা বড়ই রিস্কি।

 

আত্মা ডাকার আরেকটি পদ্ধতি, এটিও অনেক প্রাচীন এবং এটি আরো ভয়ানক ও কার্যকরী। এটা হচ্ছে ম্যাজিক বা স্পেলের মাধ্যমে ডাকা। মৃত মানুষকে ডাকার এই বিদ্যা নিয়ে একটা বই লিখেছেন আলহাজেন বিন জোসেফ যাকে আরবে ম্যাড অ্যারাবিয়ান বলে ডাকা হতো।

তার এই বই, নেক্রোনোমিকন নিয়ে আমি ডিটেইলসে কথা বলেছি, এখানেঃ নেক্রোনোমিকন: কালোজাদুর সেই ভয়ংকর বই

কেউ কি ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইনের গন্ধ পাচ্ছেন? জ্বি, ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইনের সেই বিখ্যাত স্টোরি এখান থেকেই নেয়া হয়েছে। সেই ম্যাড অ্যারাবিয়ান একটি বই লিখেছেন যেটাকে দুনিয়ার সবচেয়ে ভয়ানক জাদুর বইগুলোর মধ্যে একটি হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়।

 

The Necronomicon
The Necronomicon: Book of the dead

বইটির নাম হচ্ছে নেক্রোনোমিকন বা নেক্রোনোমাইকন, যেখানে তিনি মৃত মানুষকে ডেকে তোলার স্পেল লিখেছিলেন। এটার অনুবাদ করেছেন সাধারন একজন মানুষ যেখানে তিনি সেই ম্যাড অ্যারাবিয়ানের গল্প বলেছেন এবং বেশ কিছু স্পেল বা মন্ত্র ও ডাকার নিয়ম লিখেছেন।

বইটি অনলাইনে পাবেন কিন্তু (ফরচুনেটলি) ব্যবহার করতে পারবেন না। নিয়মকানুন সম্পর্কে জানার দরকার নেই। শেষে কোনো ভাবে খারাপ আত্না হলে ডেমনিক পোসেশনের স্বীকার হতে হবে, তখন আবার এক্সোরসিজম নিয়ে দৌড়াদৌড়ি করতে হবে। সুতরাং বুঝে শুনে!

By Muntasir Mahdi

Author, Marketer, Entrepreneur, Content Creator

1 comment

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *